ঢাকা, ১৮ জুলাই, ২০১৯ || ৩ শ্রাবণ ১৪২৬
bbp24 :: বরেন্দ্র প্রতিদিন
২৫৮

বুদ্ধিদীপ্ত মাশরাফি অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত

প্রকাশিত: ১২ মার্চ ২০১৫  


বাংলাদেশ-ইংল্যান্ড ম্যাচে মাত্র ২ রান করে তামিমের আউট হওয়া, আর শেষ দিকে এসে ক্রিস ওয়াকসের ব্যাট থেকে ঊর্ধ্বমুখী বলটির ইজি ক্যাচ মিস করার পর যে-কারো মাথা গরম হওয়াটাই স্বাভাবিক! আর যদি সেদিন বাংলাদেশ দল হেরে যেত, তাহলে তামিমের মুণ্ডপাত করে ছাড়ত সারা জাতি। ভাগ্যিস, আমরা জিতেছি!

 

এই বিজয়ের মধ্য দিয়ে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ ক্রিকেটের কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। যদিও এর আগে ২০০৭ সালে সুপার এইটে খেলেছিল লাল-সুবজ জার্সিধারীরা। কিন্তু এবার ইংলিশদের হারিয়ে ইতিহাস রচনা করেছে মাশরাফি বাহিনী। যে কারণে আমাদের এবারের সম্পাদকীয় লেখা হলো দলনেতা মাশরাফিকে নিয়েই।

 

ম্যাচ শেষে মাশরাফি বিন মুর্তজা বলছিলেন, তার খুব গর্ব হচ্ছে। টিম ম্যানেজম্যান্ট, কোচিং স্টাফ ও খেলোয়াড়দের ধন্যবাদ জানিয়ে সামগ্রিক পারফরম্যান্স নিয়ে মাশরাফি বলতে থাকেন, ‘আমরা শুরুর দিকে ভালো ছিলাম না। কিন্তু মাঝপথে আমরা ফিরে আসি। মাহমুদউল্লাহ ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন। তার সঙ্গে মুশফিকুর রহিমও অসাধারণ খেলেছে। আমি মনে করি, রুবেল হোসেন গুরুত্বপূর্ণ সময়ে অসাধারণ বোলিং করেছে। চারটি উইকেট তুলে নিয়েছে। আমরা কী করতে পারি তা আমরা দেখিয়ে দিয়েছি। এটাই আমাদের সার্থকতা।’

 

তামিমের ক্যাচটি নিয়ে প্রশ্ন করার পর মাশরাফি বলেন, ‘ক্যাচটি মিস করায় তামিমের নিজেরও বেশ খারাপ লাগছে। সে আমাদের দলের সেরা একজন ফিল্ডার।’ যদি হেরে যেত বাংলাদেশ দল, তাহলে তার দায় নিঃসন্দেহে বর্তাত তামিমের ওপর। সমগ্র বাংলাদেশের জনগণ, দলের ভক্ত-সমর্থকরা কেউই ক্ষমা করতেন  না তাকে। সে ক্ষেত্রে অধিনায়কের মাথা তো আরো খারাপ হওয়ারই কথা! কিন্তু মাশরাফির কৃতিত্ব সেখানেই। তামিমের এত বড় ব্যর্থতার পরও মাশরাফি খুবই ঠান্ডা মাথায় পজিটিভ মন্তব্য করেছেন তার সম্পর্কে। এটাই একজন অধিনায়কের সময়োপযোগী পদক্ষেপ।

 

অধিনায়ক হওয়ার আগে মাশরাফির চালচলন, কথাবার্তায় খুব একটা মনে হয়নি ছেলেটি এতটা বুদ্ধিদীপ্ত! কেমন একটা ক্যালাস ক্যালাস ভাব ছিল তার মধ্যে। কিন্তু অধিনায়ক হওয়ার পর তার ভেতরের আসল চেহারার প্রকাশ পাচ্ছে। অ্যাডিলেডে তার বক্তব্যে যারপরনাই খুশি সারা দেশের মানুষ। খুশি হয়েছেন সারা বিশ্বের ক্রিকেটপ্রেমীরা।

 

আমরা আশা করব, কাপ্তান মাশরাফি যে হাল ধরেছেন তাকে টিকিয়ে রাখতে পারবেন শক্ত হাতে। আর হৃদয়ে লালন করবেন ধৈর্য ও মহানুভবতা। আগামী দিনের আশায় আর সম্ভাবনায় চলুক মাশরাফির স্বপ্নপূরণের অগ্রযাত্রা।