ঢাকা, ১৮ জুলাই, ২০১৯ || ৩ শ্রাবণ ১৪২৬
bbp24 :: বরেন্দ্র প্রতিদিন
৩২

দোকানদার ছাড়াই চলে কেনাকাটা!

প্রকাশিত: ৩ জুন ২০১৯  


 

কথিত আছে ভারতের সৎ কমিউনিটি হল মিজো। সেটা এই গ্রাম দেখলেই বোঝা যায়। আর পাঁচটা গ্রামে মতো এই গ্রামেও আছে দোকান। গ্রামে ঢুকলেই দেখা যাবে সারিবদ্ধ দোকান। পাওয়া যাচ্ছে বিভিন্ন সবজি, ফল কিন্তু এই দোকানে নেই কোনও দোকানি। 

হ্যাঁ, ঠিকই দোকানদার ছাড়াই চলছে দোকান  শুনতে অবাক লাগলেও এটাই সত্যি। স্থানীয় ভাষায় যার নাম লু ঘা লউ দর। বাংলায় যার অর্থ দোকানি ছাড়া দোকান।

দোকান বলতে একটি মাচা, তার উপরে একটা ছাউনি। সেই মাচায় রাখা বিভিন্ন রকম শাকসবজি, ফল। রাখা আছে একটি দামের তালিকা। সেখান থেকে নিজের প্রয়োজনমতো জিনিস কিনে যাচ্ছেন সেখানকার বাসিন্দারা

সবজির পাশে রাখা একটা করে কৌটো। যেখানে প্রয়োজনীয় দাম দিয়ে যাচ্ছেন বাসিন্দারা। খুচরো লাগলেও সেখান থেকেই করিয়ে নিচ্ছেন। এভাবেই চলছে বছরের পর বছর

দোকানে পণ্যের তালিকায় রয়েছে সবজি, ফল, ফলের রস, ছোটো মাছ, শামুকের পদ।

শেলিংয়ের এই দোকানগুলো চালায় মূলত কৃষকরা। চাষের সবজি নিজেদের ব্যবহারের জন্য রেখে বাকিটা এই দোকানের মাধ্যমে বিক্রি করেন তাঁরা।

এক কৃষক জানান, আর্থিক দিক থেকে দুর্বল হওয়ায় দোকানি রাখা তাঁদের পক্ষে সম্ভব নয়। সেই কারণেই এই পথ।

দোকানে কেনাকাটা খুব একটা যে বেশি হয় তা নয়। তবে যা হয় তা দিয়ে সংসার চলে যায় কৃষকদের।

দুর্নীতি, চুরির মাঝে সততার অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন মিজোরামের শেলিং গ্রামের কৃষকরা। যাঁরা প্রমাণ করেছেন সততাই এখনও একমাত্র মূলধন।


এই বিভাগের আরো খবর